বলিউডের ‘সত্যিকারের চ্যাম্পিয়ন’ নিউজিল্যান্ড

বিশ্বকাপে এমন ফাইনাল কেউ দেখেনি কোনো দিন। গতকাল রাতটা ইংল্যান্ডের জন্য এমন এক মহাকাব্য, যার শেষটায় দেখা মেলে আনন্দাশ্রু। এ নিয়ে চতুর্থবার ফাইনাল খেলল তারা। তৃতীয়বারও যেটা হয়নি, চতুর্থবার সেটা না হতে হতেও হয়ে গেল। ভাগ্যদেবী যেন আগেই ঠিক করে রেখেছিলেন, যেভাবেই হোক এবার বিশ্বকাপের ‘গোল্ডেন টাচ’ পাবে স্বাগতিকেরাই। আর টানা দ্বিতীয়বার নিউজিল্যান্ড মাত্র কয়েক ইঞ্চি দূর থেকে পেল স্বপ্নভঙ্গের যন্ত্রণা। তবে সব ছাপিয়ে গতকালের ফাইনালকে ‘রুদ্ধশ্বাস’ বললেও কম বলা হবে।

ছোট্ট ছোট্ট মুহূর্ত যে বদলে দেয় ইতিহাস, তার সাক্ষী হয়ে থাকবে গতকালের ম্যাচ। তখন খেলার একেবারে শেষ মুহূর্ত। জয়ের জন্য ইংল্যান্ডের শেষ ৩ বলে দরকার ছিল ৯ রান। এমন পরিস্থিতিতে মার্টিন গাপটিলের থ্রো বেন স্টোকসের ব্যাটে লেগে বাউন্ডারিসীমানা টপকে যায়। আর ব্যাটসম্যানরা দৌড়ে ২ রান নেওয়ায় আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা মোট ৬ রান যোগ করতে বলেন স্কোরবোর্ডে। ব্যস, এইটুকুই বদলে দিল সমস্ত সমীকরণ।

এই অতিরিক্ত ৪ রান নিয়ে রয়েছে একটা বিতর্ক। আর তার চেয়েও বড় বিতর্ক এক অদ্ভুত নিয়মকে ঘিরে। ৫০ ওভার খেলা শেষে খেলা গড়াল সুপার ওভারে। আর সেখানেও দুই দলই করল সমানে সমান, ১৫ রান। সুপার ওভারেও যদি টাই হয়, তাহলে নাকি যে দল বেশি বাউন্ডারি মেরেছে, সে-ই জয়ী। একপক্ষ বাউন্ডারিকে বাহাদুরি মানা এই নিয়ম মানতে নারাজ। তাদের মতে, অন্য পক্ষ তো সংগ্রাম করে সিঙ্গেল নিয়ে রানটা তুলল, তাতে বাহাদুরি কম কিসে!

যিনি ভাগ্যে বিশ্বাস করেন না, গতকালের ম্যাচ দেখে ভাগ্যকে আর অস্বীকার করতে পারবেন না তিনিও। হ্যাঁ, ইংল্যান্ড জিতেছে। তবে নিউজিল্যান্ডও তো হারেনি। নিউজিল্যান্ড যদি হেরেই থাকে, তো হেরেছে ভাগ্যের কাছে। ইংল্যান্ডের টেমস নদীর পাড়ে লর্ডসে অনুষ্ঠিত এই ঐতিহাসিক, মহাকাব্যিক ম্যাচ সাত সমুদ্দুর, তেরো নদী পার করে স্পর্শ করেছে বলিউড তারকাদেরও।

শহীদ কাপুর

শহীদ কাপুরের অবস্থাও যেকোনো নিউজিল্যান্ড–ভক্তের মতো। আর সবার মতো তিনিও মানতে পারছেন না মার্টিন গাপটিলের বোবা কান্না। যদিও তিনি লিখেছেন এভাবে, ‘আমি কোনো দলেরই সমর্থক নই। শুধু একটা দুর্দান্ত ম্যাচ উপভোগ করলাম। তবে কিউইদের জন্য কষ্ট নিয়ে ঘুমোতে যাচ্ছি। তারা কোনোভাবেই দ্বিতীয় হতে পারে না, কোনোভাবেই না।’

করণ জোহর

প্রযোজক, পরিচালক ও অভিনয়শিল্পী করণ জোহরের মতে, নিউজিল্যান্ড যতটা ভালো খেলেছে, ইংল্যান্ডের ভাগ্য তার চেয়েও বেশি ভালো। রাত ১২টা ৫১ মিনিটে তিনি টুইট করেছেন, ‘নিউজিল্যান্ড খুব খুব ভালো খেলেছে। কিন্তু ইংল্যান্ডের ভাগ্য আরও বেশি ভালো।’ এর কিছুক্ষণ আগে করণ জোহর লিখেছিলেন, ‘আমি মায়ের সঙ্গে একবার ক্রিকেট দেখি, আরেকবার টেনিস দেখি। আর কিছুক্ষণ পরপর চিৎকার করে দেখি। ফেদেরারকে শেষ পর্যন্ত হারতে দেখে হৃদয় ভাঙল। তবে আমি নিউজিল্যান্ডকে নিয়ে এখনো আশাবাদী। দেখা যাক, কী হয়!’

তাহলে তো বলতেই হয়, একরাতে দুবার হৃদয় ভেঙেছে করণ জোহরের।

অনুরাগ কাশ্যপ 

পরিচালক, প্রযোজক অনুরাগ কাশ্যপ তো রীতিমতো খেপেছেন। সুপার ওভারে যে দল বেশি বাউন্ডারি করবে, তারাই জিতবে—এই নিয়মকে তিনি একটা শব্দে বলে দিয়েছেন—‘স্টুপিড’। তিনি নিউজিল্যান্ডকেই ‘সত্যিকারের চ্যাম্পিয়ন’ বলেছেন। রাত সাড়ে ১২টায় তিনি লিখেছেন, ‘যত্তসব আজেবাজে নিয়মে বিশ্বকাপ নিল ইংল্যান্ড। নিউজিল্যান্ডই সত্যিকারের বিজয়ী।’

বরুণ ধাওয়ান

বরুণ ধাওয়ান এককথায় ক্রিকেটের পোকা। রাত ১২টা ২ মিনিটে তিনি টুইট করেছেন, ‘এ কী আশ্চর্য বিশ্বকাপ ফাইনাল! অবিশ্বাস্যভাবে আমার পরিবারের সবাই এখনো জেগে আছে। দেখা যাক, কাপটা কে নেয়।’

সিদ্ধার্থ মালহোত্রা

অন্য ক্রিকেটভক্তদের মতো সিদ্ধার্থ মালহোত্রাও মনে হয়েছেও, এই ম্যাচ যে কাউকে পাগল করে ফেলার জন্য যথেষ্ট। রাত ১২টা ৪৭ মিনিটে তিনি লিখেছেন, ‘কী এক মহাকাব্যিক ফাইনাল! উভয় দলই অবিশ্বাস্য খেলল। অত্যন্ত গাঢ় আবেগপ্রবণ, পাগল করে ফেলার মতো একটা ম্যাচ।’

অনুপম খের 

অনুরাগ কাশ্যপ যখন নিউজিল্যান্ডকে সত্যিকারের চ্যাম্পিয়ন বলছেন, তখন অভিনেতা অনুপম খেরের মতে, বিজয় হয়েছে ক্রিকেটের। যদিও তিনি ইংল্যান্ডকে অভিনন্দন জানিয়ে কিউইদের বলেছেন ‘হিরোদের দল’। তিনি লিখেছেন, ‘দলের ঊর্ধ্বে এবারের বিশ্বকাপ জিতল ক্রিকেট। কী অবিশ্বাস্য একটা খেলা দেখলাম। ইংল্যান্ডকে অভিনন্দন। দুর্দান্ত এক বিজয়। কিন্তু বলতেই হবে, যোদ্ধাদের দল নিউজিল্যান্ড, যারা কেবল বিজয়ী হতে জানে।’ অনুপম খের কাল লন্ডনে স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখেছেন। সেখানকার একটি ভিডিও-ও তিনি যোগ করেছেন এই লেখার সঙ্গে।

রীতেশ দেশমুখ 

অনেকের মতো বলিউড তারকা রীতেশ দেশমুখও মনে করেন, ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ জিতেছে। আর নিউজিল্যান্ড জিতেছে হৃদয়। তিনি কিউইদের বলেছেন ‘মুকুটহীন চ্যাম্পিয়ন’। রাত ১২টা ৪০ মিনিটে তিনি টুইট করেছেন, ‘ক্রিকেটের ইতিহাসের সবচেয়ে মহাকাব্যিক জয়! নতুন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডকে অভিনন্দন। তবে ব্লাক ক্যাপসের জন্য আমার হৃদয় কাঁদছে। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য যতটা ভালো খেলতে হয়, তারা ততটাই ভালো খেলেছে। তারা এই বিশ্বকাপের মুকুটহীন চ্যাম্পিয়ন।’

সোহা আলী খান
ভারতের ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মনসুর আলী খান পতৌদির মেয়ে, বলিউড তারকা সোহা আলী খান লিখেছেন, ‘এই ম্যাচটা আপনি কিছুতেই মিস করতে পারেন না। দুটো দলই তাদের হৃদয় উজাড় করে দিয়ে খেলেছে। আর একটা উদ্ভট নিয়ম নির্ধারণ করে দিল কে বিজয়ী! যা হোক, বিশ্বকাপটা নিজেদের ঘরে রেখে দেওয়ার জন্য অভিনন্দন।’

এ ছাড়া ফারহান আখতার, রাভিনা ট্যান্ডন, মীরা কাপুর, হেজেল কিচ, সুরবীন চাওলা, পরেশ রাওয়াল এবং বিবেক ওবেরয়রা এই ম্যাচ নিয়ে টুইটারে তাঁদের অনুভূতি লিখেছেন।